প্রেমে বাধা পেয়ে দিল্লির তরুণী ডাক্তারকে খুন করল সিনিয়র সহকর্মী!

অথর
জে.এন.এস নিউজ ডেক্স :   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২২ আগস্ট ২০২০, ৫:৫৭ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 17 বার
প্রেমে বাধা পেয়ে দিল্লির তরুণী ডাক্তারকে খুন করল সিনিয়র সহকর্মী!

জে.এস.এন. নিউজ ডেক্স : গত ১৫ অগস্টেই গাইনোকলজি ও অবস্টেট্রিকসে মাস্টার অফ সার্জারি করেছিলেন ৩০ বছরের তরুণী ডাক্তার। দিল্লির শিবপুরীর বাসিন্দা যোগীতা গৌতম আগ্রার এস এন মেডিক্যাল কলেজ থেকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। সেখানেই তাঁকে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে। তাঁর রক্তাক্ত ও ক্ষতবিক্ষত দেহ কাঠের তক্তার নীচে লুকনো অবস্থায় ছিল। সেখান থেকে যোগীতার দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, যোগীতাকে একাধিকবার ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়েছে এবং পরিচয় ঢাকতে তাঁর মুখটি একেবারেই ক্ষতবিক্ষত করে দেওয়া হয়েছে। কয়েক ঘণ্টা ধরেই তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না বুধবার। তার পরেই রাতে উদ্ধার হয় যোগীতার দেহ। এই ঘটনায় যোগীতার সহকর্মী ও সিনিয়র ডাক্তার বিবেক তিওয়ারিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মোরাদাবাদের তীর্থঙ্কর মহাবীর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রেফতার করা হয় বিবেককে। উত্তরপ্রদেশের জালাউনে একটি জেলা হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার বিবেক তিওয়ারি। পুলিশের কাছে তিনি নিজের অপরাধ স্বীকার করেছেন। পুলিশ সূত্রে খবর, প্রায় সাত বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল তাঁদের। তবে সম্প্রতি তাঁদের সম্পর্কে চিড় ধরে। পালটে যায় তাঁদের রসায়নও। এর ফলে তখন থেকেই প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে উঠেছিলেন বিবেক। গত মঙ্গলবারই বিবেক দেখা করতে গিয়েছিলেন যোগীতার সঙ্গে। কিন্তু সেদিন তাঁদের মধ্যে ঝগড়া হয়। বিবেক জেরায় বলেছেন, ‘ঝগড়ার পরই আমি ওকে টেনে নিয়ে গিয়ে ধারালো ছুরি দিয়ে কোপাই। কাঠের একাধিক তক্তার নীচে ওর দেহ ফেলে দিই।’ ময়নাতদন্তের রিপোর্টে যদিও যোগীতার দেহ থেকে তিনটি গুলিও পাওয়া গিয়েছে। একটি মাথায়, দুটি বুকে লেগেছিল। গলাতেই গভীর ক্ষতচিহ্ন রয়েছে। বিবেক তিওয়ারির কানপুরের বাড়ি থেকেই যোগীতাকে অপহরণ করার গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। বাবা বিষ্ণু তিওয়ারির লাইসেন্সপ্রাপ্ত বন্দুক ব্যবহার করেই যোগীতাকে খুন করেছেন বিবেক। যোগীতার দাদা মহিন্দ্রও দিল্লির একটি হাসপাতালের ডাক্তার। তিনিও জানিয়েছেন, যোগীতার মাথা থেঁতলে দেওয়া হয়েছিল। ডাক্তার বিবেক তিওয়ারির বিরুদ্ধে পুলিশ ৩৬৪ ধারায় খুন ও অপহরণ, ৫০৬ ধারায় অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র মামলা রুজু করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − seven =